ব্রেকিং:
উত্তরাঞ্চলের যেখানে চোখ যায় প্রচুর বৃক্ষ দেখতে পাওয়া যায়: রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কেএম তারিকুল ইসলাম গাইবান্ধা জেলার সব নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত নীলফামারীতে নতুন করে একজন করোনা পজেটিভ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে ৫ ফার্মেসীকে জরিমানা বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৯ জন। এনিয়ে মোট মারা গেলেন ২,৪৯৬ জন। এছাড়া একই সময়ে আরও ২,৭৩৩ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১,৯৬,৩২৩ জন।
  • বৃহস্পতিবার   ১৬ জুলাই ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ১ ১৪২৭

  • || ২৫ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
শেখ হাসিনার কারাবরণ দিবস আজ কুুড়িগ্রামের দুই উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি দুর্গম পাহাড়ে সেনাবাহিনীর ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ‘ফাস্ট-ট্র্যাক’ প্রকল্পে মেট্রোরেল রুট ১ ও ৫ মাত্র ৯ টাকায় মিলবে দেশীয় গা‌ছের চারা- মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন
১৬৬

ইনজুরির কারণে এক সপ্তাহের বিশ্রামে থাকবেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ

প্রকাশিত: ২৭ নভেম্বর ২০১৯  

ভারতের বিপক্ষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলে মাত্র এক ম্যাচে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। তবে এ সফরে ইনজুরিতে পড়েছেন দলের কয়েকজন খেলোয়াড়। দিবারাত্রির টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ের সময় হ্যামস্ট্রিংয়ে চোটে পড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। উঠে যান মাঠ থেকে। আর মাঠে নামা হয়নি এ ব্যাটসম্যানের। ফলে এক সপ্তাহের বিশ্রামে থাকবেন রিয়াদ।

তৃতীয় দিনে ইনিংস ও ৪৬ রানে হেরে ২-০ তে হোয়াইটওয়াশ হয় টিম টাইগার্স। সেই দিন রাতেই কলকাতা থেকে দেশে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ। দেশে ফিরে পরদিন ক্ষতে স্ক্যান করিয়েছেন। কিন্তু সেই স্ক্যান রিপোর্ট এখনো হাতে পায়নি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মেডিকেল বিভাগ।

তবে দেশে ফেরার পর মাহমুদউল্লাহর শারীরিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেছেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী। তার মতে আগামী এক সপ্তাহ রিয়াদকে পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে হবে। এ সময়টা তিনি বিশ্রামে না থাকলে আসন্ন বিপিএলে তার অংশ নিতে পারবেন না।

মঙ্গলবার এ বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, মাহমুদউল্লাহর ইনজুরিটা হচ্ছে গ্রেড ওয়ান হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি। সে গতকাল স্ক্যান করিয়েছে, এখনো রিপোর্ট হাতে পাইনি। এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে খুব অল্প মাত্রার হ্যামস্ট্রিং হলেও ৭ দিনের বিশ্রাম বেঁধে দেয়া হয়েছে। রেস্ট নেয়ার জন্য রিহ্যাব করার জন্য। ফিট না হয়ে খেলায় ফিরলে আবার ইনজুরিতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একই ইনজুরি ওই জায়গাতে হলে সারতে সময় নেয়। আমাদের প্রধান কাজ হচ্ছে ওর দ্বিতীয় ইনজুরিটা আটকানো। কারণ একই জায়গায় দ্বিতীয়বার চোট পেলে ফিরতে দিগুণ সময় লাগতে পারে।

তিনি আরো বলেন, দ্বিতীয় ইনজুরিতে পড়লে সেরে উঠতে এক মাসের মতো সময় লেগে যায়। আর তৃতীয় বার লাগলে খেলোয়াড়ের ওই মৌসুম মিস করার সম্ভাবনা থাকে। এক্ষেত্রে আমাদের প্রথম এবং প্রধান কাজ হচ্ছে ইনজুরিটা যেন দ্বিতীয়বার না হয় সে ব্যবস্থা করা।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –
খেলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর