ব্রেকিং:
দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪ হাজার ৬৪৬ জনে। শুক্রবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।
  • শনিবার   ২৩ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১০ ১৪২৭

  • || ০৯ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
নরেন্দ্র মোদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধন্যবাদ ১২ বছরে দেশের অনেক পরিবর্তন করেছে সরকার- পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা মুজিববর্ষের উপহার, নতুন ঘরে ৩৬৭০ পরিবারে খুশির বন্যা ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা দেশের প্রথম সুপার এক্সপ্রেসওয়ে

কর্মচাঞ্চল্যতা ফিরেছে হিলি স্থলবন্দরে   

প্রকাশিত: ৩ জানুয়ারি ২০২১  

প্রায় ৪ মাস ধরে বন্ধ থাকার পর আবার শুরু হয়েছে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি। শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ভারত থেকে পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক দেশে আসার মধ্য দিয়ে এই কার্যক্রম শুরু হয়। এর ফলে বন্দরে কর্মচাঞ্চল্যতা ফিরে এসেছে।

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ জানান, শনিবার দেশে ভারতীয় পেঁয়াজের প্রথম চালান এসেছে। দীর্ঘদিন ধরে ভারত সরকার কোনো কারণ ছাড়াই বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ রেখেছিল। তারা পেঁয়াজের উপর থেকে গত ২৮ ডিসেম্বর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। শনিবার পর্যন্ত আমরা প্রায় ৬ হাজার টনের মত এলসি করেছি। আশা করছি, আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ দেশের বাজারে চলে আসলে ২২-২৫ টাকায় বিক্রি হবে। এতে করে ক্রেতারা কম দামে পেঁয়াজ কিনতে পারবেন।

এদিকে হিলি স্থলবন্দরের আড়তদাররা জানান, শনিবার ভারত থেকে পেঁয়াজ আসায় দেশি পেঁয়াজ মানভেদে ৩০-৩২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দুইদিন আগেও যেখানে ৩৬-৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল। আমদানির খবরে কেজিতে ৬-৮ টাকা করে কমে গেছে দেশি পেঁয়াজের দাম। আরো দাম কমে আসবে।

এর আগে গত বছরের ১৪ সেপ্টেবম্বর কোনা পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই ভারত সরকার হিলি স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়। এর ফলে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা মিয়ানমার, পাকিস্তান, মিশর, তুরস্ক ও চীন থেকে বিপুল পরিমাণে পেঁয়াজ আমদানি করেন। এরপরও পেঁয়াজের দাম ছিল তুলনামূলক বেশি।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –