ব্রেকিং:
করোনায় আক্রান্ত হয়ে রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রামে আরো একজনের মৃত্যু। রংপুর নগরীতে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জীবাণুনাশক স্প্রে করছে সিটি কর্পোরেশন।
  • শুক্রবার   ১৬ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২ ১৪২৮

  • || ০৩ রমজান ১৪৪২

সর্বশেষ:
রংপুর নগরীর শাপলা চত্বর এলাকায় র‌্যাব-১৩ এর উদ্যোগে করোনা সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা চলছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় সারাদেশে দ্বিতীয় দিনের মতো সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। প্রবাসী কর্মীদের জন্য বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করছে সরকার বসুন্ধরার হাসপাতাল ‘উধাও’ হয়নি, বণ্টন হয়েছে- স্বাস্থ্যের ডিজি রংপুরসহ দেশের তিন বিভাগ ও দুই জেলার একাধিক স্থানে কালবৈশাখী ঝড়ের আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও রংপুরে রাস্তার মোড়ে মোড়ে বসেছে পুলিশের চেকপোস্ট।

খালেদা জিয়া বিএনপির ‘রাজনৈতিক পুতুলে’ পরিণত

প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২১  

প্রায় এক যুগের বেশি সময় ধরে আন্দোলন করতে গিয়ে বারবার জনগণ থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে বিএনপি। দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের একক দৌরাত্ম্য আর বিভক্ত কেন্দ্রীয় নেতাদের ক্ষোভ বিএনপিকে শোচনীয় পর্যায়ে নিয়ে গেছে। আর কেন্দ্রীয় নেতাদের একাংশ খালেদা জিয়াকে ‘রাজনৈতিক পুতুলে’ পরিণত করে স্বার্থ হাসিলের চেষ্টায় লিপ্ত বলে অভিযোগ রয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৩ সাল থেকে বারবার ঈদের পর কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। কিন্তু আন্দোলন বেগবান করতে পারেননি দলটির নেতাকর্মীরা।

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পরও অসংখ্যবার আন্দোলনের ডাক দিয়েও কোনো সুসংগঠিত আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেননি দলটির নেতারা।

এ ব্যাপারে সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপির দুর্নীতির ফিরিস্তি আজও মানুষ ভুলে যায়নি। যতবারই বিএনপি মানুষের কাছে গিয়েছে, ততবার প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। কারণ জনগণের জন্য বিএনপি কোনো উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন করেনি, যা উপস্থাপন করে দলটির নেতাকর্মীরা মানুষকে কাছে ডাকতে পারেন। আর এ কারণেই বিএনপি আন্দোলন সংগঠিত করতে পারছে না। এছাড়া বিএনপির নেতাদের অধিকাংশই ক্ষমতা পাগল। একজন অপরজনকে টপকিয়ে বড় হতে চায়।

বদরুদ্দোজা চৌধুরী আরো বলেন, বিএনপি বর্তমানে নেতৃত্ব সংকটে রয়েছে। তারা যতই চেষ্টা করুক কিছুই করতে পারবে না। কারণ তৃণমূলের নেতারা জানেই না, বিএনপির মূল চাবিকাঠি কার হাতে। তৃণমূলের কেউ কেউ তারেক রহমানের নির্দেশনা ফলো করেন, আবার অনেকে মির্জা ফখরুলের নির্দেশনা ফলো করেন। এর ফলে বিএনপির অভ্যন্তরে একটি বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। এজন্য তাদের দ্বারা আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব হচ্ছে না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেন, দলের অভ্যন্তরে অন্তর্কোন্দল থাকলেও সর্বোপরি আন্দোলন করতে চায় বিএনপি।

তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়ার কাঁধে ভর দিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করতে গিয়ে এখন তাকে পুরোপুরি রাজনৈতিক পুতুল বানানো হয়েছে। তাকে ব্যবহার করে যে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করা হয়েছিল তাও পুরোপুরি ব্যর্থ হচ্ছে।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –