ব্রেকিং:
করোনায় আক্রান্ত হয়ে রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রামে আরো একজনের মৃত্যু। রংপুর নগরীতে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জীবাণুনাশক স্প্রে করছে সিটি কর্পোরেশন।
  • শুক্রবার   ১৬ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২ ১৪২৮

  • || ০৩ রমজান ১৪৪২

সর্বশেষ:
রংপুর নগরীর শাপলা চত্বর এলাকায় র‌্যাব-১৩ এর উদ্যোগে করোনা সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা চলছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় সারাদেশে দ্বিতীয় দিনের মতো সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। প্রবাসী কর্মীদের জন্য বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করছে সরকার বসুন্ধরার হাসপাতাল ‘উধাও’ হয়নি, বণ্টন হয়েছে- স্বাস্থ্যের ডিজি রংপুরসহ দেশের তিন বিভাগ ও দুই জেলার একাধিক স্থানে কালবৈশাখী ঝড়ের আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও রংপুরে রাস্তার মোড়ে মোড়ে বসেছে পুলিশের চেকপোস্ট।

চীনা হ্যাকারদের নিশানায় ভারতের টিকা উৎপাদনকারী সংস্থা

প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২১  

করোনাভাইরাসের টিকা প্রস্তুতকারক ভারতীয় দুই সংস্থাকে নিশানা করার অভিযোগ উঠেছে চীনের হ্যাকারদের বিরুদ্ধে। সাইবার গোয়েন্দা সংস্থা সাইফিরমা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছে, চীনের হ্যাকারদের একটি দল সম্প্রতি ভারতীয় দুই টিকা প্রস্তুতকারক সংস্থার প্রযুক্তিগত পদ্ধতিকে টার্গেট করেছে। 

এরই মধ্যে চীন এবং ভারত দু’টি দেশই বিশ্বের বহু দেশকে নিজেদের তৈরি টিকা পাঠিয়েছে। তবে বিশ্বব্যাপী বিক্রি হওয়া সব টিকার ৬০ শতাংশেরও বেশি ভারতেই উত্পাদন হয়।

সিঙ্গাপুর ও টোকিওতে অবস্থিত গোল্ডম্যান স্যাশের তৈরি সাইবার গোয়েন্দা সংস্থা সাইফিরমা জানিয়েছে, স্টোন পান্ডা নামে পরিচিত চীনা হ্যাকিং গ্রুপ এপিটি টেন। এই হ্যাকিং গ্রুপটি ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট ও ভারত বায়োটেককে টার্গেট করেছে। এই দুটি সংস্থা ভারতে করোনার টিকা  তৈরি করছে।

এই দুই সংস্থার প্রযুক্তি পরিকাঠামো হ্যাক করে তথ্য চুরি ও টিকা সরবরাহের চেইনের তথ্য চুরির চেষ্টা করছে চীনা হ্যাকাররা। সাইফিরমার চিফ এক্সিকিউটিভ কুমার রিতেশ বলেছেন, ভারতীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলোর তথ্য হাতানোর মাধ্যমে প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকার চেষ্টা করা হচ্ছে। এতে নানারকমের ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, চীনা হ্যাকাররা ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট ও ভারত বায়োটেককে টার্গেট করেছে।

প্রসঙ্গত, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার কোভিশিল্ড ভারতে তৈরি করছে পুণের সেরাম ইন্সটিটিউট। এটি বিশ্বের সর্ববৃহৎ টিকা প্রস্তুতকারক সংস্থা। 

অন্যদিকে, হায়দরাবাদের সংস্থা ভারত বায়োটেক ও আইসিএমআর-এর যৌথ প্রচেষ্টায় তৈরি হয়েছে কোভ্যাক্সিন। ভারতে জরুরি ভিত্তিতে এই দুটি টিকাকেই ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছিল। এই দুটি টিকার প্রয়োগ জোরকদমে চলছে ভারতজুড়ে।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –