• বুধবার   ২৭ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭

  • || ০৪ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
নিলুফার মঞ্জুরের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক যে কোনো সময় ‘দ্বিতীয় ঝড়’ শুরু হবে: ডাব্লিউএইচও বাংলাদেশের তৈরী ৬৫ লাখ পিপিই গেল যুক্তরাষ্ট্রে করোনা: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রোগীদের খাবার পাঠালেন জেলা প্রশাসক সরকারি নির্দেশনায় ঈদের নামাজ আদায়: মুসুল্লীদের ধন্যবাদ
৪৪২

জাবি শিক্ষক-ছাত্র মিলে ত্রাণ বিতরণে সহায়ক অ্যাপস উদ্ভাবন         

প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০২০  

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনিস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজির (আইআইটি) শিক্ষক ও ছাত্র মিলে করোনাভাইরাস নিয়ে এক ভিন্নধর্মী অ্যাপস উদ্ভাবন করেছে। অ্যাপসটির নাম ‘Pashe Achi’ (পাশে আছি)।
অ্যাপসটির উদ্ভাবনকারীরা হলেন- আইআইটির সহযোগী অধ্যাপক ড. শামীম আল মামুন ও ইন্সিটিউটটির ৪৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থী শাহীন বাশার।

এই অ্যাপসের বিষয়ে সহযোগী অধ্যাপক শামীম আল মামুন জানান, এটি একটি মোবাইল অ্যাপস। এর বিশেষত্ব হলো এতে আছে করোনা সম্পর্কিত সব তথ্য। সেই সঙ্গে থাকছে স্থানীয় পর্যায়ে সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর ম্যাপ লোকেশন।

এই অ্যাপসে মানুষ কি সুবিধা পাবে? এমন প্রশ্নে তিনি জানান, এতে থাকছে একটি চলমান ম্যাপ। যাতে দেখা যাবে কোন সংগঠন কোথায় তাদের সাহায্য বিতরণের কাজ করছে। এতে করে অন্যান্য সংগঠনগুলো অথবা ব্যক্তি তাদের সাহায্য বিতরণের সঠিক প্ল্যান করতে পারবেন বলে আমরা আশা করছি।

তিনি বলেন, এই অ্যাপসে আরো থাকছে, দেশভিত্তিক বা এলাকাভিত্তিক সামাজিক সংগঠনের তালিকা ও আর্থিক সাহায্যের আবেদন করার মেনু। আরো থাকবে, কারা কোন সংগঠন থেকে কবে সাহায্য পেয়েছেন তার বিবরণ। যাতে একই ব্যক্তি অযাচিতভাবে একাধিক সাহায্য না পান; এককথায় সুষম বণ্টনের একটি তালিকা। এছাড়া কোন ব্যক্তি যদি কোন নির্দিষ্ট জায়গায় সাহায্য করতে চান, তাহলে ওই এলাকার সংগঠনগুলোর তালিকা ও ডোনেশনের টাকাও দেখতে পাবেন।

এছাড়া কোন সংগঠন যদি আমাদের এই অ্যাপস ব্যবহার করে আর্থিক সাহায্যের আবেদন করেন- তবে কত টাকা তারা উঠাতে চান এবং কোন এলাকা এবং কাদের মাঝে বিতরণ করতে চান তার বিবরণ দিয়ে এই অ্যাপসে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। আবেদন করার সঙ্গে সঙ্গে তা স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নিকট এসএমএস এর মাধ্যমে চলে যাবে এবং সংগঠনও পেয়ে যাবে ফিরতি এসএমএস। যাতে থাকবে পুলিশ প্রশাসনের নম্বর। এর মাধ্যমে তারা সহজে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন, সঙ্গে আরো কিছু ফিচারস থাকছে।

শামীম আল মামুন আরো বলেন, আমাদের মূল আগ্রহ ছিল মেশিন লার্নিং। তথা কিভাবে এই সংকট মোকাবিলায় আমারা সহজে অসহায়দের নিকট সাহায্য পৌঁছাতে পারি। তাই এই অ্যাপসে ব্যবহার করা হয়েছে মেশন লার্নিং অ্যালগোরিদম। যা ত্রাণ বিতরণে সুষম বণ্টন নিশ্চিত করবে এবং ডোনেশন প্রদানে ও গ্রহণে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করবে। এছাড়া অ্যাপসটি ব্যবহারের মাধ্যমে যেকোন ব্যবহারকারী তার নিকটস্থ পুলিশ স্টেশন ও হাসপাতালের সঙ্গে খুব দ্রুত যোগাযোগ করতে পারবে।

অ্যাপসটি কোথায় পাওয়া যাবে? এমন প্রশ্নে তিনি জানান, বর্তমানে অ্যাপসটির ডেমো আমাদের গুগল ড্রাইভে রাখা আছে। তাতে করোনার তথ্য নিয়মিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদফতরের ‘ইনফো’ সংযোজিত করা আছে। খুব শীঘ্রই আমাদের অ্যাপসের যাবতীয় ফিচার সহকারে অ্যাপসটি আপডেট করবো। অ্যাপসটি গুগল প্লে স্টোরে আসতে আরো এক সপ্তাহ লাগবে।

যারা আমাদের অ্যাসপটি এখন ব্যবহার করতে চান তারা নিচের লিঙ্ক থেকে ডাউনলোড করতে পারেন। ডাউনলোড লিংক- tinyurl.com/pasheachi

এই অ্যাপসের উদ্ভাবক আশাবাদ ব্যক্ত করেন, সব সামাজিক ও ব্যক্তি সংগঠন তাদের তৈরি এই অ্যাপস ব্যবহার করে এই মহামারির সংকটকালে খাদ্যের সুষম বণ্টন নিশ্চিত করবে।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –
শিক্ষা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর