• শুক্রবার   ১৮ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪২৮

  • || ০৭ জ্বিলকদ ১৪৪২

সর্বশেষ:
জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার কাউন্সিলের সদস্য হলো বাংলাদেশ নতুন প্রজন্মকে অপরাধমূলক কাজ থেকে দূরে রাখতে হবে- শিক্ষামন্ত্রী রংপুরের শতরঞ্জি পেল জিআই পণ্যের স্বীকৃতি রৌমারীতে মাদরাসাছাত্রদের মারধরের অভিযোগে শিক্ষক আটক গ্রাহক সেবা বৃদ্ধি করার নির্দেশ বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর

জয়ের ক্ষুধা নিয়ে ভারতের বিপক্ষে নামছে জামাল ভুঁইয়ারা

প্রকাশিত: ৭ জুন ২০২১  

জামাল ভুঁইয়া এরই মধ্যে আবার ভারতীয়দের বুকে কাঁপন ধরিয়েছেন। যুবভারতীর ম্যাচের আগে যে হুঙ্কার দিয়েছিলেন তিনি, তখন সেটা ফাঁকা আওয়াজ বলেই মনে করেছিলেন কেউ কেউ। কিন্তু ম্যাচে বাংলাদেশ তা হাড়ে হাড়ে বুঝিয়ে দিয়েছিল। দোহায় মুখোমুখি হওয়ার আগে সেই যুবভারতী ফিরছে তাই বারবার। ভারতীয়রাই পরখ করতে চাইছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক একই মেজাজে আছেন কি না।

ডেনমার্কে বেড়ে ওঠা এই বাংলাদেশি আবারও তাদের হতাশ করেছেন, পুরনো ক্ষতে জ্বালা একটু বাড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, ‘যুবভারতীতে জিততে না পারার আফসোস আমরা এখনো করি। ভারত সেদিন শেষ মুহূর্তে ম্যাচে ফিরেছিল। তবে সেই ক্ষুধাটা আমাদের এখনো রয়ে গেছে। আশা করি, এই ম্যাচেই তার কিছুটা আমরা জুড়াতে পারব।’

রোববার অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের করা ম্যাচ প্রিভিউতে ছাপা হয়েছে জামালের এই বক্তব্য। ঠিক যেমন যুবভারতীতে ভারতীয় সাংবাদিকদের সামছিলেন তিনি, সেই একই রকম আত্মবিশ্বাস ফুটে উঠেছে তাঁর কথায় দোহার ম্যাচের আগে। তবে নিশ্চিতভাবেই এই আত্মবিশ্বাসের জ্বালানি সাদ উদ্দিনের গোলে ‘লিড’ নেওয়ার পর যুবভারতীতে জয়ের স্বপ্ন দেখানো, শেষ পর্যন্ত ১-১ সমতায় শেষ হওয়া সেই ম্যাচটা নয় পুরোপুরি। এরপর আরো ১০টি ম্যাচ হয়েছে। তাতে যুবভারতীর বীরত্ব বেশ ভালোভাবেই অনুভব করা যেত, অন্তত নেপালের মাটিতে নেপালের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালটা পর্যন্ত। মর্যাদার সেই ম্যাচটি একতরফা হারে সেই বীরত্বে চোট লেগেছিল বাংলাদেশ দলের। সেই ফুটবলাররাই সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে দোহায় আফগানিস্তানের বিপক্ষে অসাধারণ এক ম্যাচ খেলেছে। তাই জামালও তাঁর স্বভাবজাত আত্মবিশ্বাসী গলায় জানিয়ে দিতে পারছেন, ‘ক্ষুধাটা আগের মতোই আছে।’

আফগানিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্রথম লেগটাতে জয়ের আশাতেই নেমেছিল বাংলাদেশ। দুশানবের সেই ম্যাচে পিছিয়ে পড়ার পর শেষ দিকে নাবিব নেওয়াজের সুযোগ নষ্ট অথবা রেফারির কঠিন সিদ্ধান্তে ১-০ ব্যবধানের হার নিয়ে ফিরতে হয় জামালদের। কিন্তু এবার আফগানরা প্রস্তুত, প্রীতি ম্যাচের পারফরম্যান্সে এমন একটা চেহারায় দেখা দিয়েছিল ম্যাচের আগে মনে হচ্ছিল তারা বাংলাদেশ থেকে যোজন এগিয়ে। প্রস্তুতি ম্যাচে ইন্দোনেশিয়াকে তারা হারিয়েছে, ড্র করেছে হংকংয়ের সঙ্গে। কিন্তু জামাল ভুঁইয়ারা আরো একবার দেখিয়েছেন র‌্যাংকিং সব নয়, ম্যাচের দিনে সামর্থ্যটা মেলে ধরতে পারাই আসল। জেমি ডেও সেই ম্যাচ থেকে সাহস কুড়িয়েছেন, ‘আফগানিস্তানের বিপক্ষে অসাধারণ খেলেছে ছেলেরা। পিছিয়ে পড়েও শেষ পর্যন্ত ম্যাচে ফিরে শক্ত মানসিকতার প্রমাণ দিয়েছে তারা।’

জামালের আত্মবিশ্বাসী বচন ছাড়াও ভারতীয় শিবিরে এই বাংলাদেশকে নিয়ে তাই সমীহ আছে। ডিফেন্ডার শুভাশীষ বোস যেমন বলেছেন, ‘বাংলাদেশের সামর্থ্য সম্বন্ধে আমাদের খুব ভালো ধারণাই আছে। কাউন্টার অ্যাটাকে ওরা ভয়ংকর। আর ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ সব সময়ই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ।’

খাতা-কলমে মুখোমুখির পরিসংখ্যানে (ভারতের ১৫ জয়, বাংলাদেশের ৩ জয়, ১১ ড্র) ভারতীয়দের আধিপত্য আছে ঠিকই, তবে মাঠে একচেটিয়া জয় পেয়েছে তারা কমই। ১১ ড্র তার বড় প্রমাণ। দুই দলের শেষ তিন ম্যাচ নিষ্পত্তি হয়নি। সে ম্যাচগুলোয় জয়ের অবস্থায় ছিল বাংলাদেশ, শেষ মুহূর্তে ম্যাচে ফিরেছে ভারত। তবে এখন বাংলাদেশও পুরো ৯০ মিনিট পারফরম করা দল। তাই শেষ ভাগে ক্লান্তি জামাল ভুঁইয়াদের শুষে নেওয়ার ভয় নেই। বড় আশাও এ জায়গাটাতেই।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –