ব্রেকিং:
দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৩৬১ জনে। শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৩৬১ জনে। শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।
  • শনিবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১১ ১৪২৭

  • || ০৮ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
লালমনিরহাটে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে এসেছে জাতিসংঘের সদস্যপদ- প্রধানমন্ত্রী বিদেশে বিনিয়োগের সুযোগ পাচ্ছেন রপ্তানিকারকরা দিনাজপুরে আরো ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত রংপুরে মৃদুলের বাড়িটি এখন ‘মাছের বাড়ি’
১৯১

দশ বছরে দেশের জিডিপি বেড়েছে তিনগুণ

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০২০  

২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) আকার (বর্তমান বাজার মূল্যে) ২৭ লাখ ৯৬ হাজার কোটি টাকা দাঁড়িয়েছে। এই হিসাবে গত ১০ বছরের ব্যবধানে দেশের জিডিপির আকার বেড়ে ৩ গুণ হয়েছে।

২০১০-১১ অর্থবছরের জিডিপির আকার ছিল ৯ লাখ ১৬ হাজার কোটি টাকা। তবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) এই হিসাবটি প্রাথমিক। সংস্থাটি এখনো চূড়ান্ত হিসাব প্রকাশ করেনি। 

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) সূত্রে জানা গেছে, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে কৃষি প্রধান বাংলাদেশের জিডিপির আকার ছিল ৫৩ হাজার ৪৪৮ কোটি টাকা। সে হিসাবে ৫২.৩১ গুণ বেড়েছে জিডিপির আকার। 

জিডিপির আকার ১৯৮২ সালে দাঁড়ায় ১ লাখ ৫৭ হাজার ৫০৫ কোটি টাকায়। অর্থাৎ ১০ বছরের ব্যবধানে প্রায় ৩ গুণ হয়েছে। ১০ বছরের ব্যবধানে ১৯৯২ সালে ২ লাখ ৬৯ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা। আর ২০০২ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৪ লাখ ৬৫ হাজার ১২০ কোটি টাকা। ২০১২ সালে দেশের জিডিপির পরিমাণ হয় ১১ লাখ ৩৩ হাজার ৯শ’ কোটি টাকা।

বিবিএস’র হিসাব অনুযায়ী, দেশে গত ১০ বছরের জিডিপি উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। ২০১০-১১ অর্থবছরে জিডিপির আকার ছিল ৯ লাখ ১৬ হাজার কোটি টাকা, ২০১১-১২ অর্থবছরে ১০ লাখ ৫৫ হাজার কোটি, ২০১২-১৩ অর্থবছরে ১১ লাখ ৯৯ হাজার কোটি, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ১৩ লাখ ৪৪ হাজার কোটি, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৫ লাখ ১৬ হাজার কোটি, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৭ লাখ ৩৩ হাজার কোটি, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১৯ লাখ ৭৬ হাজার কোটি, ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ২২ লাখ ৫১ হাজার কোটি আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এর আকার দাঁড়ায় ২৫ লাখ ৪২ হাজার কোটি টাকায়। 

জিডিপির খাতভিত্তিক পর্যালোচনায় দেখা যায়, কৃষি থেকে সরে শিল্প নির্ভর অর্থনীতির পথে হাঁটছে বাংলাদেশ। কয়েক বছর ধরে দেশের জিডিপিতে কৃষির ভাগ কমছে। সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরের প্রাথমিক হিসাবে (বর্তমান বাজারমূল্য) এ খাতের বর্তমান আকার ৩ লাখ ৪৭ হাজার ৬৩৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ জিডিপির এ খাত থেকে এসেছে ১৩.০২ শতাংশ। এর আগের অর্থবছরে কৃষি থেকে  এসেছিল জিডিপির ১৩.৩২ শতাংশ। 

তবে এই সময়টাতে বেসরকারি বিনিয়োগে স্থবিরতা না কাটলেও জিডিপিতে শিল্পখাতের অংশ একটু একটু করে বেড়েছে। যদিও শতাংশের হিসাবে গেল অর্থবছরের প্রাথমিক হিসাবে জিডিপিতে এ খাতের যোগান দশমিক ২ শতাংশ কমেছে। বছর ভিত্তিক হিসাবে দেখা যায় ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৪ লাখ ৭৩ হাজার ৮৭১ কোটি টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫ লাখ ৪৮ হাজার ৩০৬ কোটি, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৬ লাখ ৪২ হাজার ২১৯ কোটি, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৭ লাখ ৫৩ হাজার ৮১২ কোটি আর গেল অর্থবছরের (২০১৯-২০) প্রাথমিক হিসাবে শিল্পখাতের আকার ৮ লাখ ৩১ হাজার ৯০ কোটি টাকা। 

এছাড়া শতাংশের হিসাবে গেল অর্থবছর জিডিপির ৩১.১৩ শতাংশ শিল্প থেকে এসেছে। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩১.১৫ শতাংশ, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৩০.১৭ শতাংশ, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ২৯.৩২ শতাংশ এবং ২০১৫-১৫ অর্থবছরে শিল্পখাত থেকে এসেছে জিডিপির ২৮.৭৭ শতাংশ। 

অনেকদিন ধরেই বাংলাদেশের জিডিপির অর্ধেকের বেশি সেবাখাত থেকে আসছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে জিডিপির ৫৬.৪৬ শতাংশ, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫৬.৫০ শতাংশ, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৫৬ শতাংশ, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৫৫.৫৩ শতাংশ, আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে এই খাত থেকে ৫৫.৮৬ ভাগ এসেছে। 

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর