ব্রেকিং:
দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৬ জন মারা গেছেন। একই সময়ে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৯০৮ জন
  • রোববার   ২৯ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৪ ১৪২৭

  • || ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
১৫ লাখ কৃষককে বিনামূল্যে হাইব্রিড বীজ দেবে সরকার দিনাজপুরে ঘন কুয়াশায় জেঁকে বসেছে শীত করোনার ভ্যাকসিন মানুষ সহজেই পাবে- সেতুমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ষড়যন্ত্রের জবাব দেবে জনগণ- মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে রোডম্যাপ সরকারের

নীলফামারীতে চাঁদাবাজির অভিযোগে প্রতিবাদ সভা

প্রকাশিত: ২০ অক্টোবর ২০২০  

নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে দলিল লেখক সমিতির বিরুদ্ধে বিশেষ সীল মোহর ব্যবহার করে চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই অভিযোগে সোমবার বিকাল ৪টা পর্যন্ত ব্যানার হাতে কার্যালয়ের সামনে দাড়িয়ে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
 
প্রতিবাদ সভায় অভিনব কায়দায় দলিল প্রতি দুই হাজার টাকা করে চাঁদা আদায়সহ গ্রাহক হয়রানীর অভিযোগ করা হয়। প্রতিবাদ সভাটির আয়োজন করেন দলিল লেখক আনিছুর রহমান, মোস্তাফিজুর রহমানসহ ভুক্তভোগী কয়েকজন দলিল লেখক। 

দলিল লেখক আনিছুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আহমেদ হোসেন ভেন্ডার ও সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন সরকার জমি ক্রেতাদের কাছ থেকে সরকারের নির্ধারিত ফি এর বাহিরে দলিল প্রতি অতিরিক্ত ২ হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করছেন। ওই চাঁদা না দিলে দলিল সম্পাদন করা হয় না।

তিনি বলেন, প্রতিটি দলিলে দুই হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করে ওই সীল দেওয়া হয়। দলিলের পেছনে বিশেষ ওই সীল মোহর না থাকলে ওই দলিল সম্পাদন করা হয় না।

দলিল লেখক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান প্রতিবাদ সভায় বলেন, এই কার্যালয়ে প্রতিদিন গড়ে ৫০ খানা দলিল সম্পাদন হয়। দলিল লেখক সমিতির নামে অবৈধভাবে প্রতি মাসে ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকা গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে। এটা বন্ধ করতে হবে।

অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে কয়েকজন ক্রেতা-বিক্রেতার সঙ্গে কথা হলে অতিরিক্ত ২ হাজার টাকা নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন তারা এবং সম্পাদন হওয়া দলিলের পেছনে ওই বিশেষ সীল দেখা যায়।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে জলঢাকা সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আহমেদ হোসেন ভেন্ডার অভিযোগের সত্যতা অস্বীকার করে বলেন, দলিল লেখক সমিতির নামে কোনো চাঁদা বা অতিরিক্ত টাকা নেয়া হয় না। 

দলিলের পেছনে বিশেষ সীল ব্যবহার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা আমাদের ঐক্যের সীল। আমরা দলিল লেখকরা ঐক্যবদ্ধ আছি সেটাই প্রমান করে ওই সীল।

আনিছুর রহমানের করা অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে জলঢাকা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজার রহমান বলেন, আনিছুর রহমানের অভিযোগ পেয়েছি, অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –