ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৩৫২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৬৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৩ হাজার ৭৯৫ জন।
  • সোমবার   ১৩ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪২৭

  • || ২২ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষ উপলক্ষে এক কোটি গাছ রোপণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী করোনার ভুয়া রিপোর্টের ঘটনায় ডা. সাবরিনা গ্রেফতার সরকারি উদ্যোগে সারাদেশে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট বর্তমান সরকার কৃষি খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে- কৃষিমন্ত্রী ই-নথি ব্যবস্থাপনায় এবারো শীর্ষে শিল্প মন্ত্রণালয়
৭৪০

পঞ্চগড়ে ৬৫টি ভাষায় অনুদিত পবিত্র কোরআনের বিরল প্রদর্শনী

প্রকাশিত: ৬ মার্চ ২০২০  

পবিত্র কোরআনের শিক্ষা পৃথিবীর প্রান্তে প্রান্তে পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যেই আহমদিয়া মুসলিম জামাত বিভিন্ন ভাষায় পবিত্র কোরআনের অনুবাদ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে বিশ্বের ৭৬টি প্রধান ভাষায় আহমদিয়া জামাত পবিত্র কোরআনের অনুবাদ প্রকাশ করেছে।

আহমদিয়া মুসলিম জামাত বাংলাদেশের ৯৬তম বার্ষিক জলসা উপলক্ষে পঞ্চগড়ে জামেয়া আহমদিয়া বাংলাদেশের কমপ্লেক্স ভবনে ৬৫টি ভাষায় অনুদিত পবিত্র কোরআনের বিরল এক প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন নিখিলবিশ্ব আহমদিয়া মুসলিম জামাতের পঞ্চম খলিফার সম্মানিত প্রতিনিধি মাওলানা আব্দুল মাজেদ তাহের। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আহমদিয়া মুসলিম জামাত বাংলাদেশের ন্যাশনাল আমির আলহাজ মাওলানা আব্দুল আউয়াল খান চৌধুরী, জামেয়া আহমদিয়া বাংলাদেশের প্রিন্সিপাল আলহাজ মোবাশ্বের উর রহমান এবং মাওলানা শাহ মুহাম্মদ নূরুল আমীন।

পঞ্চগড়ে এই প্রথমবারের মতো জলসা উপলক্ষে পবিত্র কোরআনের ৬৫টি ভাষায় সম্পূর্ণ অনুবাদ প্রদর্শনীর আয়োজন করে আহমদিয়া মুসলিম জামাত, বাংলাদেশ। এটি নিঃসন্দেহে পবিত্র কোরআনের বিরল এক প্রদর্শনী। এছাড়া আহমদিয়া মুসলিম জামাতের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১০০টি ভাষায় সম্পূর্ণ কোরআন অনুবাদের কাজ সমাপ্ত হয়েছে যা প্রিন্টিং পর্যায়ে আছে।

প্রদর্শনীর আয়োজকরা বলেন, ‘আমরা চাই, প্রতিটি ভাষায় কোরআনের অনুবাদ প্রকাশ করে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা সবার কাছে পৌঁছে দিতে। আমরা এবার ৬৫টি ভাষায় অনুদিত কোরআন প্রদর্শনীর আয়োজন করেছি।’

কোরআন প্রদর্শনীর পরিচালক মাওলানা শাহ মোহাম্মদ নুরুল আমীন বলেন, এ প্রদর্শনী দেখতে আসা বিভিন্ন ধর্মাবলম্বী ও দর্শনার্থীদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ ও উচ্ছ্বাস পরিলক্ষিত হয়েছে। সেই সাথে জলসা উপলক্ষে আগত প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা এ উদ্যোগকে ভূয়সী প্রশংসা করেন।আহমদিয়া জামাত এ প্রদর্শনীর পদক্ষেপকে কোরআনের গুরুত্ব উপলব্ধি ও এর প্রকৃত জ্ঞান বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার এক মহাসুযোগ হিসেবে মনে করছে। প্রদর্শনীতে বাংলা, ইংরেজি, উর্দু, মাওরি, জুলা, মেনডি, ওরিয়া, ইয়াউ, কিকাম্বা, কাটালান, টভালুয়ান ভাষাসহ মোট ৬৫টি ভাষায় অনুবাদকৃত কোরআন প্রদর্শন করা হয়েছে।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –
পঞ্চগড় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর