ব্রেকিং:
দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৩৯৩ জনে। বুধবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ। বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ শরীফ ওরফে রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির মধ্যে ছয়জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। এ সময় বাকি চার আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে।
  • বুধবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১৫ ১৪২৭

  • || ১২ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
করোনা মোকাবিলায় জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর ৬ দফা প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ম্যাজিকের মতো কাজ করছে-পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে বেরোবি ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ ‘বাংলাদেশে পানি জীবন-মরণের বিষয়’ মুজিববর্ষের উপহার: ৯ লাখ পরিবারকে ঘর দেবে সরকার
১৭১

মহররম মাসে বিয়ে-শাদির বিষয়ে ইসলাম কি বলে? 

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০২০  

ইসলামের ইতিহাসে এক জ্বলন্ত সাক্ষী মহররম মাস। অনেক ঐতিহাসিক ঘটনার সূত্রপাত হয় এ মাসে। শুধু উম্মতে মুহাম্মদিই নয়, বরং পূর্ববর্তী অনেক উম্মত ও নবীদের অবিস্মরণীয় ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল এই মহররম মাসে।
নামকরণ থেকেই প্রতীয়মান হয় এ মাসের ফজিলত। মহররম অর্থ মর্যাদাপূর্ণ, তাৎপর্যপূর্ণ। যেহেতু অনেক ইতিহাস-ঐতিহ্য ও রহস্যময় তাৎপর্য নিহিত রয়েছে এ মাসকে ঘিরে, সঙ্গে সঙ্গে এ মাসে যুদ্ধ-বিগ্রহ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ ছিল, এসব কারণেই এ মাসটি মর্যাদাপূর্ণ। তাই এ মাসের নামকরণ করা হয়েছে মহররম বা মর্যাদাপূর্ণ মাস।

মহররম সম্পর্কে (যা আশহুরে হুরুমের অন্তর্ভুক্ত তথা নিষিদ্ধ মাস) পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহর বিধান ও গণনায় মাসের সংখ্যা বারটি। যেদিন থেকে তিনি সব আসমান ও পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন। তন্মধ্যে চারটি হলো সম্মানিত মাস। এটাই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান। সুতরাং তোমরা এ মাসগুলোর সম্মান বিনষ্ট করে নিজেদের প্রতি অত্যাচার করো না।’ (সূরা : তওবা, আয়াত : ৩৬)।

অর্থাৎ সৃষ্টির সূচনালগ্ন থেকে আল্লাহ তায়ালা ১২টি মাস নির্ধারণ করে দেন। তন্মধ্যে চারটি মাস বিশেষ গুরুত্ব ও তাৎপর্য বহন করে।

ওই চারটি মাস কী কী? এর বিস্তারিত বর্ণনা হজরত আবু হুরায়রা (রা.) সূত্রে বর্ণিত, হাদিসে উল্লিখিত হয়েছে, নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, এক বছরে ১২ মাস। এর মধ্যে চার মাস বিশেষ তাৎপর্যের অধিকারী। এর মধ্যে তিন মাস ধারাবাহিকভাবে (অর্থাৎ জিলকদ, জিলহজ ও মহররম) এবং চতুর্থ মাস মুজর গোত্রের রজব মাস। (সহিহ বুখারি : ৪৬৬২ ও মুসলিম : ১৬৭৯)।

পবিত্র কোরআন ও হাদিসের উপরোক্ত ঘোষণায় আমরা জানতে পারছি যে, মহররম সম্মানিত ও মর্যাদার মাস। অথচ এ মাসের বিয়ে-শাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ সাওয়াব ও ইবাদতের আমল ঠিক নয়, এমনটি মনে করেন অনেকে। বাস্তবেই কি এ ধারণা বা বিশ্বাস সঠিক?

মহররম মাসে কি বিয়ে-শাদি করা যাবে না? এ সম্পর্কে ইসলামের নির্দেশনাই বা কী?

ইসলামের ইতিহাসে নানান কারণে মহররম মাস সর্বাধিক পরিচিত। এ মাসটি আল্লাহর গণনায় ১২ মাসের মধ্যে যে ৪টি মাসকে মর্যাদা ও সম্মানিত করেছেন, তার মধ্যে একটি মাস হলো মহররম। এ মর্যাদার মাসে মুমিন মুসলমান নারী-পুরুষের বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপন করা যাবে না বা তা অশুভ বা কুলক্ষণে মর্মে সমাজে প্রচলিত ধারণা সঠিক নয়। বরং এ ধারণা পোষণ করা একটি ভুল বিশ্বাস ও কুসংস্কার।

মহররম মাসে বিয়ে করা যাবে না- এ রকম কোনো কথা বা প্রমাণ কোরআন এবং হাদিসে নেই। মর্যাদার মাস মুহররম নিয়ে এসব ভ্রান্ত ধারণা পোষণ করা ইসলামি শরীয়তে নিষিদ্ধ। কেননা হাদিসের পরিভাষায়, ‘কোনো বিষয়কে কুলক্ষণে মনে করাকে শিরক বলা হয়েছে।’ (আবু দাউদ)।

অন্য যেকোনো দিন ও মাসে মুমিন মুসলমান যেসব ভালো কাজগুলো করে থাকেন, সেসব ভালো কাজগুলো মহররমসহ সম্মানিত ৪ মাসে বেশি বেশি করা উচিত। বিয়ে-শাদি যেহেতু একটি ভালো ও কল্যাণকর কাজ। তাই এ মাসে বিয়ে-শাদিও করা যাবে। এতে কোনো দোষ, অশুভ ও কুলক্ষণে নেই।

যে ভুল বিশ্বাসে সমাজে এ কুসংস্কার প্রচলিত:

মহররম মাসে বিয়ে করা যাবে না মর্মে যে ভুল বিশ্বাস সমাজে বেশ প্রচলিত আছে, তা হলো- মহররম মাস একটি অপয়া মাস ও কুলক্ষণে মাস। বিয়ে শাদির জন্য এটি খারাপ সময়। এটা শোকের সময় বা মাস। তাই এ মাসে বিয়ে শাদি করা ঠিক নয়। এ ধারণাটিই মূলত কুসংস্কার ও ভুল।

মহররম মাসে মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে স্থায়ী এক ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রাণ প্রিয় দৌহিত্র হজরত ইমাম হুসাইন রাদিয়াল্লাহু আনহুকে নির্মমভাবে শাহাদাত করা হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনেকে শোক পালন করে থাকেন। আর এ কারণেই অনেকে শোকের মাস হিসেবে এ মাসে বিয়ে-শাদি করাকে কুলক্ষণে ও অশুভ মনে করেন।

হজরত ইমাম হুসাইন রাদিয়াল্লাহু আনহুর শাহাদাত মুসলিম উম্মাহর জন্য অবশ্যই অত্যন্ত হৃদয় বিদারক ঘটনা। কিন্তু এ কারণে এ মাসের কোনো ভালো কাজকে অশুভ বা কুলক্ষণে ও অপয়া বলা একবারেই ঠিক নয়। কেননা ইসলামের দৃষ্টিতে সময় (দিন, মাস) অশুভ ও অপয়া হয় না। কোনোভাবেই মন্দ হতে পারে না।

অন্যদিকে মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা এ মাসে পয়গাম্বর হজরত মুসা আলাইহিস সালামের বিজয়ের ঘটনা ঘটিয়েছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সে ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিজে রোজা রেখেছেন এবং অন্যদের রোজা রাখতে বলেছেন। হাদিসে এসেছে-

হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদিনায় এসে দেখলেন, ইয়াহুদিরা আশুরার দিন রোজা পালন করছে। তখন তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, এটা কিসের রোজা?

তারা (ইয়াহুদিরা) বলল, এটা একটা উত্তম দিন। আল্লাহ তায়ালা এ দিন বনি ইসরাইল জাতিকে তাদের দুশমন (ফেরাউন)- এর আক্রমণ থেকে নিরাপদ করেছেন। তাই (হজরত) মুসা আলাইহিস সালাম এ দিন রোজা রেখেছিলেন।

তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমাদের চেয়ে আমিই (হজরত) মুসা (আলাইহিস সালাম)-এর (আদর্শ পালনে) বেশি হকদার। কাজেই তিনি নিজে আশুরার রোজা রাখলেন এবং অন্যদেরকেও রোজা রাখতে বললেন।’ (বুখারি, মুসলিম, ইবনে মাজাহ, আবু দাউদ, মুসনাদে আহমাদ, বায়হাকি)।

সুতরাং মহররম মাসকে অশুভ, কুলক্ষণে ও অপয়া বলা একটি ভুল বিশ্বাস ও কুসংস্কার। মুমিন মুসলমানকে এ ভুল বিশ্বাস ও কুসংস্কার থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। এ বিশ্বাস ত্যাগ করা প্রত্যেকের ঈমানি দায়িত্ব।

মনে রাখতে হবে-

পৃথিবীতে যা কিছু ঘটে তার সবই মহান আল্লাহর ইচ্ছাতেই ঘটে থাকে। কোনো দিন, রাত, সপ্তাহ বা মাসের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। যেমন- শাওয়াল মাস: জাহেলি যুগে শাওয়াল মাসে বিয়ে শাদি করাকে অশুভ মনে করা হতো। কিন্তু এ মাসে প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে বিয়ে করেছেন।

হাদিসে এসেছে-

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা জাহেলি যুগের শাওয়াল মাসের এ কুধারণা তথা কুসংস্কারকে এভাবে খণ্ডন করেছেন যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে শাওয়াল মাসেই বিয়ে করেছেন এবং এ মাসেই তিনি বাসর রাত উদযাপন করেছেন। অথচ তাঁর অনুগ্রহ লাভে আমার চেয়ে অধিক সৌভাগ্যবতী স্ত্রী আর কে আছে? (মুসলিম)।

এ হাদিস থেকে প্রমাণিত যে, কোনো দিন, সপ্তাহ কিংবা মাসে কল্যাণকর কোনো কাজ করাকে অশুভ মনে করা ঠিক নয়। বরং কোনো দিন, সপ্তাহ ও মাসকে অশুভ, অপয়া ও কুলক্ষণে মনে করা ভুল বিশ্বাস ও কুসংস্কার। এ ধারণা পোষণ করা ঠিক নয়।

সুতরাং মহররম মাসের বিয়ে শাদি করায় কোনো নিষেধ নেই। আর তা অশুভ, অপয়া বা কুলক্ষণেও নয়। শুধু মহররম নয় বরং বছরজুড়ে যেকোনো দিন বিয়ে-শাদি করা যাবে। কোনো দিনই অশুভ ও কুলক্ষণে নয়। এটি হোক মুমিন মুসলমানের সঠিক আকিদ্বা-বিশ্বাস।

রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে মর্যাদার মাস মহররমকে যথাযথ সম্মান ও ইজ্জতের সঙ্গে অতিবাহিত করার তাওফিক দান করুন। এ মাসের ৯-১০ কিংবা ১০-১১ এ দুই দিন রোজা পালন করে সুন্নাতের ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। এ মাস নিয়ে যাবতীয় ভুল বিশ্বাস ও কুসংস্কার থেকে বিরত থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর