ব্রেকিং:
করোনায় আক্রান্ত হয়ে রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রামে আরো একজনের মৃত্যু। রংপুর নগরীতে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জীবাণুনাশক স্প্রে করছে সিটি কর্পোরেশন।
  • শুক্রবার   ১৬ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২ ১৪২৮

  • || ০৩ রমজান ১৪৪২

সর্বশেষ:
রংপুর নগরীর শাপলা চত্বর এলাকায় র‌্যাব-১৩ এর উদ্যোগে করোনা সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা চলছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় সারাদেশে দ্বিতীয় দিনের মতো সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। প্রবাসী কর্মীদের জন্য বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করছে সরকার বসুন্ধরার হাসপাতাল ‘উধাও’ হয়নি, বণ্টন হয়েছে- স্বাস্থ্যের ডিজি রংপুরসহ দেশের তিন বিভাগ ও দুই জেলার একাধিক স্থানে কালবৈশাখী ঝড়ের আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও রংপুরে রাস্তার মোড়ে মোড়ে বসেছে পুলিশের চেকপোস্ট।

রংপুর নগরীতে চলছে না গণ-পরিবহন

প্রকাশিত: ৭ এপ্রিল ২০২১  

করোনার সংক্রমণ রোধে সরকার আরোপিত ‘কঠোর বিধিনিষেধের’ মধ্যেই চালু হয়েছে গণ-পরিবহন। মঙ্গলবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, লকডাউনে মহানগরে চলাচলের ভোগান্তি বিবেচনায় এনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ঢাকাসহ দেশের সব সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বাস চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

কিন্তু ঘোষণার পরেও রংপুর মহানগরীতে চলছে না গণ-পরিবহন। সিটি কর্পোরেশনে চলাচলের এরিয়া কম হওয়ায় এবং নগরীর ভিতরে বাস সার্ভিস চালু না থাকায় চালকরা চালাচ্ছেন না গণ-পরিবহন।

বুধবার (৭ এপ্রিল) বেলা ১২টার দিকে নগরীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, চার তলা মোড় বাস স্ট্যান্ড, সাত মাথা বাস স্ট্যান্ড ঘুরে দেখা যায় গণ-পরিবহনের চালক, সহযোগী এবং সুপারভাইজাররা আসলেও তারা গাড়িতে হাত দেন নি। যাত্রীরাও আসেননি টার্মিনালে। ফলে সারি সারি ভাবে টার্মিনালেই সাজানো আছে গাড়ি।

সেঞ্চুরি পরিবহনের ড্রাইভার আলমগীর হোসেন জানান, রংপুর সিটি এলাকায় দম দমা থেকে হাজিরহাট পর্যন্ত গণ-পরিবহন চালানোর সুযোগ আছে। যার দৈর্ঘ্য মাত্র ১০ কিলোমিটার। এতো স্বল্প দৈর্ঘ্য এলাকায় গাড়ি চালালে তেলের টাকাই উঠবে না।

আশিক পরিবহনের সুপার ভাইজার নুর আলম জানান, আজকে যাত্রীর জন্য কাউন্টারে বাস বসা। আর রংপুর সিটিতে যে যাত্রী আছে তা রিকশা আর অটো ওয়ালারাই বহন করছে। লকডাউনের সময়ে তাদেরই যাত্রী কম। তারা অনেকেই বসে আছে।

রংপুর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এমএ মজিদ মুঠো ফোনে জানান, চট্টগ্রাম এবং ঢাকা মহানগরী ছাড়া কোনো সিটি এলাকাতেই গণ-পরিবহন চালানো সম্ভব নয়। রংপুর সিটিতে গণ-পরিবহন চলার মতো কোনো সুযোগ নেই। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্ত:জেলা গণ-পরিবহন চালুর দাবি জানাচ্ছি।

রংপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল ইসলাম মৃধা জানান, সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী লকডাউনেও সিটি এলাকায় সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চালু থাকবে বাস সেবা। যাত্রী ওঠার আগে প্রতিবার ট্রিপ শেষে জীবাণুনাশক দিয়ে স্প্রে করতে হবে আর মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়। আর সে অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে রংপুর সিটি এলাকায় গণ-পরিবহন চললে আমরা সহযোগিতা করবো।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –