• বৃহস্পতিবার   ২৯ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১৪ ১৪২৭

  • || ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সর্বশেষ:
আত্মরক্ষার জন্য শক্তিশালী সশস্ত্রবাহিনী গড়বে সরকার: প্রধানমন্ত্রী নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে সরকারের উপর দোষ চাপাচ্ছে বিএনপি: কাদের ৯৫ হাজার নতুন শ্রেণিকক্ষ পাবে মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীরা মুজিববর্ষ উদযাপনে বাংলাদেশে আসবেন এরদোয়ান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মন্তব্যে বিরক্ত বিএনপি

রাজনীতিতে বিদায়ের দোরগোড়ায় খালেদা জিয়া

প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০  

দ্বিতীয় দফায় জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধি সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারির পর বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া নেতা-কর্মীদের সঙ্গে দেখা তো দূরের কথা টেলিফোনেও কোনো নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করছেন না। অর্থাৎ তিনি যে রাজনীতি থেকে এখন বিদায়ের দোরগোড়ায় সেটি পরিষ্কার। 

খালেদা জিয়ার একমাত্র উত্তরসূরি হিসেবে তারেক জিয়াকে বিবেচনা করা হলেও সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপিতে তারেক জিয়ার অবস্থান অত্যন্ত নাজুক। বর্তমানে তিনি ভিলেনে পরিণত হয়েছেন। বিশেষ করে মনোনয়ন বাণিজ্য, কমিটি বাণিজ্যসহ নানা কারণে তৃণমূলের নেতা-কর্মী থেকে  কেন্দ্রীয় পর্যায়ের নেতাদের কাছে তারেক জিয়ার কোন ইমেজ নেই। বরং তারেক জিয়া যত দ্রুত দলের কর্তৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াবেন তত দলের উপকার, এই রকম কথা এখন বিএনপি নেতারা প্রকাশ্যেই বলছেন। 

বিএনপিপন্থী যেসব রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা আপদকালীন সময়ের জন্য তারেক জিয়াকে দলের পদ ছেড়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ করছেন। তাদের মধ্যে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অন্যতম।

ডা. জাফরুল্লাহর মতো অনেকেই মনে করেন, লন্ডনে থেকে বিএনপির মতো একটি দল পরিচালনা করা সম্ভব না। এ দলটির মূল ভিত্তিই যেন আওয়ামী লীগ বিরোধিতা করা। 

বিএনপির অনেক নেতা মনে করছেন, বিএনপিকে নতুন করে সাজানো প্রয়োজন। দলের মধ্যে থেকেই জিয়া পরিবারের বাইরে যদি কাউকে নেতা হিসেবে দেয়া যায়, তাহলে দলটি সহজেই সংগঠিত হতে পারবে।

উল্লেখ্য, ১৯৮১ সালের ৩০ মে জিয়াউর রহমানের মৃত্যুর পর কিছুদিনের জন্য জিয়া পরিবারের বাইরে নেতা হয়েছিলেন বিচারপতি আবদুস সাত্তার। তবে সেটি বেশি দিন স্থায়ী হতে পারেনি। তখন দলের ভেতর কোন্দল, বিভক্তিসহ নানা জটিলতার কারণে খালেদা জিয়া বিএনপির নেতৃত্ব গ্রহণ করেন। 

জিয়া পরিবারের অনেকেই মনে করেন, এখন তারেককে নিয়ে যে বিতর্ক, অনাস্থা সেই প্রেক্ষাপটে তারেক যদি দলের নেতৃত্ব থেকে সরে যান এবং নতুন নেতাকে যদি দায়িত্ব দেন তারপরও দলের মধ্যে এই বিভক্তি অনাস্থা তৈরি হবে। দলের মধ্য থেকে তখন তারেক জিয়া বা জিয়া পরিবারের কাউকে দলের নেতৃত্ব দেয়ার প্রস্তাব দেয়া হবে এবং তখন তিনি নিরঙ্কুশ ক্ষমতার অধিকার হবেন।

তবে এখন খালেদা জিয়ার বদলে, তারেক জিয়াকে কেউ মেনে নিতে পারছেন না। আর শুধুমাত্র দেশীয় প্রেক্ষপটে এই বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে তা না। প্রভাবশালী একাধিক দেশের কূটনীতিকরা বিএনপিকে জিয়া পরিবার মুক্ত করার  বিষয়ে বলেছেন।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –