• শুক্রবার   ১৮ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪২৮

  • || ০৭ জ্বিলকদ ১৪৪২

সর্বশেষ:
জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার কাউন্সিলের সদস্য হলো বাংলাদেশ নতুন প্রজন্মকে অপরাধমূলক কাজ থেকে দূরে রাখতে হবে- শিক্ষামন্ত্রী রংপুরের শতরঞ্জি পেল জিআই পণ্যের স্বীকৃতি রৌমারীতে মাদরাসাছাত্রদের মারধরের অভিযোগে শিক্ষক আটক গ্রাহক সেবা বৃদ্ধি করার নির্দেশ বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর

হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে নীলফামারীতে ১২’শ আলেমের বিবৃতি

প্রকাশিত: ৫ মে ২০২১  

হেফাজত নেতাদের কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে বিবৃতি দিয়েছে নীলফামারী জেলার ১২শত আলেম ওলামা। বিবৃতি আরও বলা হয় ইসলামে ‘মানবিক বিয়ে’ বলে কোনো আইন নেই। যা সম্পূর্ণরূপে হেফাজতে ইসলামের মনগড়া সাজানো ধর্মের নামে মিথ্যা ফতোয়া।  

বুধবার(৫ মে/২০২১) দুপুরে মউশিক (মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা) শিক্ষক কল্যাণ পরিষদ ইসলামিক ফাউন্ডেশন নীলফামারী জেলা শাখার পক্ষে এই  বিবৃতি প্রদান করা হয়। সংগঠনের জেলা সভাপতি মাওলানা আব্দুল জব্বার ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিক স্বাক্ষরিত ওই বিবৃতিতে জেলার ৬ উপজেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকগণ স্বাক্ষর করেন।

বিবৃতিতে দাবী করা হয়, মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে সারা দেশে ধর্মের নামে হেফাজতে ইসলাম তান্ডব লীলা চালিয়েছে। ইসলামের দোহাই দিয়ে হেফাজত নেতা শায়খুল হাদীস আল্লামা মামুনুল হক রিসোর্টে গিয়ে নারী নিয়ে বেহায়াপূর্ণ কাজে লিপ্ত হন। শুধু তাই নয় ইসলামকে ব্যবহার করে সেটিকে মানবিক বিয়ে বলে জায়েজ করার অপতৎপরতা চালায় হেফাজতে ইসলাম।তারা বিভিন্ন রকম ফতোয়া দিয়ে সেই বেহায়া পূর্ণ কাজকে  হেফাজত নেতারা সমর্থন জোগায়। মিথ্যাচার করে গেলেন এবং বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে দেশে মাদ্রাসায় অধ্যায়নরত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের উস্কানী দিয়ে মাঠে নামিয়ে তান্ডব লীলায় জড়িয়ে দিয়ে নিজেরা তান্ডব লীলা চালালেন। 

ওই বিবৃতিতে দাবী করা হয়, পবিত্র ইসলামে মানবিক বিয়ে বলে কোনো আইন নেই। যা সম্পূর্ণরূপে হেফাজতে ইসলামের মনগড়া সাজানো ধর্মের নামে মিথ্যা ফতোয়া।

মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে দেশে জ্বালাও পোড়াও ও তান্ডবলীলার মাধ্যমে যে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করে হেফাজতে ইসলাম, তা সম্পূর্ণ ইসলাম বিরোধী। ইসলাম জ্বালাও পোড়াও মানুষ হত্যাকে সমর্থন করে না।

ওই বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এর আগেও হেফাজতে ইসলাম ২০১৩ সালে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের সামনে দেশ জাতি সম্পর্কে নানাবিধ ভুল তথ্য উপস্থাপন করে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে সাথে নিয়ে হেফাজতে ইসলাম ও সাম্প্রদায়িক শক্তি মিলে ওই অপতৎপরতা চালিয়েছে, যা ইতিমধ্যে প্রমানিত হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র, নারী কেলেংকারী, মসজিদ মাদ্রাসার নামে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিদেশ থেকে বিপুল পরিমান অর্থ এনে নিজেরা ভোগ করাসহ নানান রকম অপকর্মের দলিল গ্রেপ্তার হওয়া হেফাজত নেতাদের স্বীকারোক্তি থেকে আমরা জানতে পারছি। পাকিস্তানি জঙ্গি গোষ্ঠীর সঙ্গে তাদের সম্পর্ক আছে বলেও পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে উঠে এসেছে। তারা আমাদের লজ্জিত করেছে, ইসলাম ও আলেম ওলামা সমাজকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। এই কাজটি হেফাজতে ইসলাম ও সাম্প্রদায়িক শক্তি জামায়াত শিবির মিলে ধর্মকে ব্যবহার করে সুপরিকল্পিতভাবে করছে। করোনা ও করোনা ভ্যাকসিন নিয়েও অপপ্রচার করতে ছাড়েননি তারা।

বিবৃতিতে বলা হয় ‘ইসলামের নিরাত্তা বিধানে, ইসলামের ভাবমূর্তি ধরে রাখতে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে, সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে ধর্মের নামে মিথ্যাচারকারী ও সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে।’

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবু বক্কর সিদ্দিক ওই লিখিত বিবৃতি সাংবাদিকদের কাছে সরবরাহ করেন।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –