• বৃহস্পতিবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৪ ১৪২৯

  • || ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
শেখ হাসিনার আজ জন্মদিন, জীবন যেন এক ফিনিক্স পাখির গল্প আজ থেকে করোনা টিকার বিশেষ ক্যাম্পেইন রংপুরে বাসের ধাক্কায় নিথর হলেন অটোযাত্রী ক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাত, প্রাণ গেল কৃষকের পঞ্চগড়ে নৌকাডুবি, ৩ দিন বাড়ল তদন্ত প্রতিবেদন জমার মেয়াদ

ভারতের জন্য তৈরি হচ্ছে দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল

প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২  

ভারতের জন্য তৈরি হচ্ছে দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল                      
জিটুজি এর আওতায় বাংলাদেশে ভারতের জন্য দুটি বিশেষ অর্থনৈতিক জোন তৈরি করছে সরকার। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) অধীনে চট্টগ্রামের মিরসরাই ও বাগেরহাটের মোংলায় এই দুটি ইকোনমিক অঞ্চল তৈরি করা হবে বলে জানা গেছে। ভূমি উন্নয়নসহ বেশ কিছু কাজ ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে বেজা কর্তৃপক্ষ।

বেজার তথ্য মতে, চট্টগ্রাম জেলার মিরসরাইয়ে বেজা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগরে ৯০০ একর জায়গা দেওয়া হয়েছে অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরি করার জন্য। অন্যদিকে বাগেরহাটের মোংলা উপজেলায় দেওয়া হয়েছে ১১০ একর জায়গা। ২০১৫ সালের বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের চুক্তি অনুযায়ী ভারত সরকারের কনসেশনাল লাইন অফ ক্রেডিটের আওতায় এই অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন হবে।

নির্মাণের প্রকল্প পরিচালক মো. মোখলেসুর রহমান জানান, বর্তমানে ভারতীয় অঞ্চলের জন্য ভূমি উন্নয়নের টেন্ডারে প্রস্তুতি চলছে। সব কিছু ঠিক থাকলে ২০২৩ সালের শুরুতেই ভূমি উন্নয়নের কাজ শুরু হবে। এছাড়া শিল্প পস্নট ডিজাইনেরও কাজ চলমান রয়েছে। আগামী দেড়-দুই বছরের মধ্যেই এখানে কারখানা স্থাপনের কাজ শুরু করা যাবে।

এ বিষয়ে বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) কর্মকর্তারা জানান, মূলত ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণের জন্য মিরসরাইয়ে এবং মোংলায় ভারতীয় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এই বিশেষ অঞ্চল তৈরির ফলে দেশে ভারতীয়দের বিনিয়োগ বাড়বে বলেও মনে করেছেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা।

এদিকে এই অর্থনৈতিক জোন তৈরি প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৯৬৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৫০ কোটি ২৬ লাখ টাকা দেবে বাংলাদেশ সরকার এবং বাকি ৯১৫ কোটি টাকা অর্থায়ন হবে বাংলাদেশকে দেওয়া ভারতের লাইন অফ ক্রেডিট (নমনীয় ঋণ) সুবিধার ঋণের মাধ্যমে। এই প্রকল্পের আওতায় ভূমি উন্নয়ন, প্রবেশপথ নির্মাণ, প্রশাসনিক ভবন, নিরাপত্তা শেড, পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা, টেলিযোগাযোগ, পানি শোধনাগারসহ অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।

এর অগে ২০১৯ সালের ৯ এপ্রিল প্রকল্পটির জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) অনুমোদন পায়। সে সময় প্রকল্প বাস্তবায়নের শেষ সময় নির্ধারণ করা হয়েছিল ২০২৩ সালের ৩০ জুন।

এছাড়াও গত ১ এপ্রিল বেজা ও আদানি পোর্টস এবং এসইজেড লিমিটেডের মধ্যে ডেভেলপমেন্ট এগ্রিমেন্ট বিষয়ক একটি চুক্তি ভারতের মুম্বাইয়ে স্বাক্ষরিত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ২৫ এপ্রিল রাজধানীর বেজা অফিসে প্রজেক্ট ম্যানেজার কনসালট্যান্ট (পিএমসি) হিসেবে ভারতের মাহিন্দ্রা কনসালটিং ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

বাংলাদেশে এখন ৩৫০টিরও বেশি ভারতীয় কোম্পানি নিবন্ধিত রয়েছে উলেস্নখ করে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কে দোরাইস্বামী বলেন, এই অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরি হলে বাংলাদেশে ভারতীয়দের বিনিয়োগ আরও বাড়বে। বিশেষ করে ভারতীয়রা অটোমোবাইল শিল্প, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ এবং লজিস্টিক সার্ভিসগুলোতে বিনিয়োগে আগ্রহী হবে বলেও জানান তিনি।

সম্প্রতি ভারত সফরেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। এদিকে ভারতের বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যেই দেশের বিভিন্ন অর্থনৈতিক জোনে বিনিয়োগ শুরু করেছেন। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগরে এশিয়ান পেইন্টস লিমিটেড ২৬ মিলিয়ন ডলার, র?্যামকি এনভায়রো পিটিওয়াই লিমিটেড ১০ মিলিয়ন ডলার এবং ম্যারিকো বাংলাদেশ লিমিটেড ২৬ দশমিক ৭২ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। এছাড়াও মেঘনা ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইকোনমিক অঞ্চল সাকাটা ইনক্স প্রাইভেট লিমিটেড ২ দশমিক ১৩ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে।

ভারতীয়রা বাংলাদেশ এরই মধ্যে গ্যাস ও পেট্রোলিয়াম, টেক্সটাইল ও পোশাক, ব্যাংকিং, বিদু্যৎ, খাদ্য, ট্রেডিং, কেমিক্যালস এন্ড ফার্মাসিউটিক্যালস, কন্সট্রাকশন, এগ্রিকালচার এন্ড ফিশিং, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, বীমা এবং ধাতু ও মেশিনারি প্রডাক্টের মতো খাতে ব্যাপক বিনিয়োগ করেছে।

– দৈনিক পঞ্চগড় নিউজ ডেস্ক –